৩০ বছরের মহিলা জানতে পারলেন আসলে তিনি পুরুষ

doctor
doctor
প্রতীকী ছবি

বং শিলিগুড়ি টাইমস: হঠাৎ তলপেটে ব্যথা নিয়ে বীরভূমের তিরিশ বছরের এক মহিলা স্থানীয় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু ক্যান্সার হাসপাতালে ভর্তি হন। ক্লিনিক্যাল অংকোলজিস্ট ডাঃ অনুপম দত্ত ও সার্জিক্যাল অংকোলজিস্ট ডাঃ সৌমেন দাস পরীক্ষা করে জানান, তিনি আসলে একজন ‘পুরুষ’। এবং তিনি টেস্টিকিউলার ক্যান্সারে আক্রান্ত।

গত নয় বছর ধরে মহিলাটি বিবাহিত। ক্লিনিক্যাল অংকোলজিস্ট ডাঃ অনুপম দত্ত জানান, ‘ তাঁর শারীরিক গঠন, কন্ঠ, বক্ষ, চেহারা সব দিক থেকেই তিনি নারী। কিন্তু তাঁর জরায়ু ও ডিম্বাশয় নেই।’ মহিলাটির কোনদিনও ঋতুস্রাবও হয়নি। প্রথমে প্রাথমিক পরীক্ষা করে দেখা যায় তাঁর যৌনাঙ্গ বদ্ধ ( ব্লাইন্ড ভেজিনা)। তখন চিকিৎসকরা ক্যারিওটাইপিং টেস্ট করার সিদ্ধান্ত নেন । তাতেই দেখা যায় তাঁর ক্রোমোসম ‘XY’ পুরুষদের মতো। যেখানে নারীদের ক্রোমসম হয় ‘XX’। আরও বিশদে পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা জানতে পারেন তাঁর শরীরের ভেতরে রয়েছে টেস্টিকল (অন্তকোষ)। এই অন্তকোষে ক্যান্সার হওয়ার কারণেই মহিলাটি পেটের ব্যথায় ভুগছিলেন।

অদ্ভুত এই রোগের চিকিৎসা বিজ্ঞানে তার নাম হল ‘এন্ড্রোজেন ইনসেন্সিটিভিটি সিন্ড্রোম’। এই অবস্থায় শারীরিক ভাবে কেও মহিলা হলেও, জেনিটিকালি সে ‘পুরুষ’ । এই ঘটনাটির পর মহিলাটির থেকে দুই বছরের ছোট বোনেরও ক্লিনিক্যাল টেস্ট করা হয়। তাতে দেখা যায় তার বোনটিও আসলে ‘পুরুষ’। ২২,০০০ জনের মধ্যে ,একজনের এই দুর্লভ রোগটি হয়। এই মহিলার মায়ের দিকের দুই আত্মীয়ারও একই ধরণের এন্ড্রোজেন ইনসেন্সিটিভিটি সিন্ড্রোম হয়। চিকিৎসকদের ধারনা জিনগত ভাবেই এই মহিলা পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here